প্রিয়াংকা মজুমদার বার্সেলোনা, স্পেন  : ইতালীর ভেনিস শহর, ভালোবাসার শহর, রোমান্টিক শহর বলে পরিচিত। হবেই বা না কেন রোমিও জুলিয়েটে শহর।আবার যারা প্রাকৃতিক প্রেমিক তাদের জন্যও ভেনিস শহর কোন অংশে কম নয় । শহরের সাধারন দৃশ্যগুলো এতই মনোমূগ্ধকর যে কেউ এই শহরের প্রেমে পড়ে যাবে।যাই হোক এবার ভেনিস শহরে আসা যাক।Burano,Murano,Torcello ইত্যাদি এই ছোট ছোট দ্বীপ নিয়ে সাজানো শহর।কোথায় ও যেতে হলো ছোট, বড় স্টীমারে করে যেতে হয়।ভালোই লাগে এক দ্বীপ থেকে অন্য দ্বীপে যেতে।
 
হালকা ঠান্ডা হাওয়া এলোমেলো চুলে বসে থাকা স্টীমারের সীটে দ্বীপের অপেক্ষায়, স্বর্গীয় অনুভূতি। তবে সেখানে সবচেয়ে বেশি চোখে পড়ে যেটা সেটা হলো অসংখ্য ছোট বড় সেতু।প্রায় সেতুর মধ্যে ছোট ছোট তালা মারা।অনেকে বিশেষ করে প্রেমিক - প্রেমিকা, স্বামী - স্ত্রী রা সেতুর মধ্যে তালা মেরে চাবি জলের মধ্যে ফেলে দেয়।এতে নাকি সেতু বন্ধনের মত ভালোবাসাও বন্ধনে থাকে।
 
সেতুবন্ধনটা হলো একপাড় থেকে অপরপাড়ে যে মিলন সেটা সেতুবন্ধন। তেমনি দুটি অচেনা মনের মধ্যে একটি মন অপর মনের সাথে মিলনে একটা বন্ধন সৃষ্টি হয়।তা সেতুবন্ধনের মত মনের বন্ধন হয়।তাই অনেকে মনে করে সেতুর মধ্যে তালা মারলে তাদের মন ও সেতুবন্ধনের মত বন্ধন হবে।যাকে বলা হয় ভালোবাসাবন্ধন।অর্থ্যাৎ সেতুবন্ধনে তালাবন্ধন করে ভালোবাসাবন্ধন করা।আবার যদি তালা কোন ভাবে খুলে যায় তাহলে নাকি ভালোবাসা ও শেষ।সবচেয়ে মজার বিষয় হলো সবার মত আমার ও ইচ্ছে ছিল সেতুবন্ধনে তালাবন্ধন করে ভালোবাসাবন্ধন করার।
 
শেষ পর্যন্ত তা আমার হলো না।কারন, আমি ভাবলাম সেতু উপর দিয়ে টুরিষ্ট যে ভাবে আসা যাওয়া করে আর সেলফি তুলে সেতু যদি কোন ভাবে ভাঙ্গে তাহলে তো ভালোবাসা গেছে।সত্যি আমি বড়ই ভয় পেলাম।হি হি হি।ঈশ্বর প্রদও বন্ধন তা কি একটা তালা বন্ধনে নষ্ট করতে পারি।আর হলো না সেতুবন্ধন - তালাবন্ধন।তাতে কি ভালোবাসাবন্ধনের ছবিবন্ধন তো আছেই।করে নিলাম অনেক অনেক ছবিবন্ধন।
 
যারা এসবে বিশ্বাসী আমি তাদের মনে কোন আঘাত দিতে চাই না।শুধু এটাই বলব সবার ভালোবাসা বন্ধন যেন সবসময় অটুট থাকে।আবার ভ্রমন করতে করতে জনপ্রিয় খাওয়া ইতালীর পিজা আর পাস্তা খেতে কেউ ভুলবেন না যেনো। মাঝে মাঝে প্রবাসীদের জীবনে ফ্যাকাশে সময়ে এইধরনের শহরের ভালোবাসার ছোঁয়া মন্দ নয়। কি বলেন।