ঢাকা চারুকলা ইনস্টিটিউট থেকে চারুকলার পাঠ শেষে এখানেই শিক্ষকতা শুরু করেন ১৯৬৬ সালে। এরপর ১৯৬৯ সালে স্পেন সরকারের বৃত্তি নিয়ে সে দেশে যান উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণের জন্য। এর পর থেকে স্পেনেই স্থায়ীভাবে বাস করে শিল্পচর্চা করছেন।

স্পেনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে তাঁর বহু একক ও যৌথ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ ছাড়া তিনি স্পেন ও মিসরে বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক চারুকলা প্রদর্শনীতে বিচারক হিসেবে কাজ করেছেন।

চিত্রকলায় অবদান

তিনি বিশেষ খ্যাতিমান তাঁর ছাপচিত্রের জন্য। এচিংয়ে তিনি এমন একটি স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য অর্জন করেছেন, যা স্পেনে ‘মনির স্কুল’ বলে পরিচিত।

সম্মাননা ও স্বীকৃতি

১৯৯৭ সালে তিনি স্পেনের রাষ্ট্রীয় পদক পান। ২০১০ সালে তিনি ভূষিত হন স্পেনের মর্যাদাপূর্ণ সম্মাননা দ্য ক্রস অব দি অফিসার অব দি অর্ডার অব কুইন ইসাবেলায়। স্পেনের রাজা সপ্তম ফার্দিনান্দ রানী ইসাবেলার সম্মানে ১৮১৫ সালের ১৮ই মার্চ রয়্যাল অ্যান্ড আমেরিকান অর্ডার অব ইসাবেলা দ্য ক্যাথলিক নামের এই পদক প্রথম প্রবর্তন করেন। পরে ১৮৪৭ সালে এর নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় রয়্যাল অর্ডার অব ইসাবেলা দ্য ক্যাথলিক। ১৯৯৮ সালে পদকটির বর্তমান নামকরণ হয়।

আন্তর্জাতিক বিভিন্ন পুরস্কার ও সম্মাননার পাশাপাশি তিনি দেশে ১৯৯৯ সালে একুশে পদকশিল্পকলা একাডেমী পদকসহ বিভিন্ন পদক ও সম্মাননা পেয়েছেন।