বাধন রায় ঝালকাঠি প্রতিনিধি :

ঝালকাঠি ০৪ জুলাই ২০২০ ঝালকাঠি জেলায় বুধবার পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় করোনা ভাইরাসে ১০ জন আক্রান্ত হয়েছে । জেলায় এ পর্যন্ত ২৪১ জন আক্রান্ত। হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা অবস্থায় ১১৭ জন সুস্থ হয়েছে এবং ৯ জন মৃত্যু বরণ করেছেন। সর্বশেষ আক্রান্ত ব্যাক্তি হলেন ঝালকাঠি রাজাপুর উপজেলার মনোহরপুর গ্রামের লাকি(৩২), আদর্শপাড়া গ্রামের এসএকে আজাদ(৪২), সাতুরিয়া গ্রামের সোহাগ মিস্ত্রী(৩০), মঠবারি গ্রামে নুরুল আলম(৬২) ও সনিয়া(৩৮), রাজাপুর সদরে সরবনি বিশ্বাস(৩৫), নিজ গুালুয়া গ্রামের আঃ সোবাহান(৫৩), গোপালপুর গ্রামের মোঃ মোতালেক(৬০), নলছিটি উপজেলার এ জব্বার হাওলাদার(৭০) ও কাঠালিয়া উপজেলার সোনাউঠা গ্রামের সুমিত নন্দি(৬৫) । এনিয়ে ঝালকাঠি জেলার ৪টি উপজেলার মধ্যে সদর উপজেলায় ৭৫ জন, নলছিটি উপজেলায় ৭২ জন, রাজাপুর উপজেলায় ৬১ জন, ও কাঠালিয়া উপজেলায় ৩৩জন। ঝালকাঠি জেলায় এ পর্যন্ত ১৭২৯ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠানে হয়েছে এবং এর মধ্যে ১৫৮০ জনের রিপোর্ট এসেছে, এদের মধ্যে ২৪১ জনের রিপোর্ট পজেটিভ ও ১৩৩৯ জনের নেগেটিভ রিপোর্ট এসেছে । জেলায় এ পর্যন্ত ১৩৬৬ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে ছিল। তাদের মধ্যে ১৩২৮জন ছাড়পত্র নিয়ে চলে গেছে। হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ৩৮ জন। ঝালকাঠির সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আবুয়াল হাসান এ তথ্য জানিয়েছেন। ঝালকাঠিতে করোনা উপসর্গ নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা ও পুলিশ সদস্যের মৃত্যু বাধন রায়, ঝালকাঠি প্রতিনিধি, ঝালকাঠি ০৪ জুলাই ২০২০ ঝালকাঠি সদর উপজেলার গাভারামচন্দ্রপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা আঃ রব(৭০) গত ২৪ঘন্টায় করোনা ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু বরণ করেছেন। তিনি জ্বর, সর্দি ও কাশিতে আক্রান্ত ছিলেন। শুক্রবার বিকালে রাষ্ট্রিয় মর্যাদায় তাকের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। একই দিন সকালে তার নিজ বাড়িতে বসে মৃত্যু হয়। অন্য দিকে করোনা উপসর্গ নিয়ে ঝালকাঠির রাজাপুর থানার পুলিশ কনস্টেবল ফিরোজ সিকদারের (৫৬) মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার গুরুতর অবস্থায় তাকে ঢাকা নেওয়ার পথে মাওয়াঘাট এলাকায় অ্যাম্বুলেন্সের মধ্যেই তঁার মৃত্যু হয়। তিনি গত ১০ দিন ধরে জ্বর, বুকে ব্যাথা ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। প্রথমে তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে গুরুতর অবস্থায় তাকে ঢাকা নেওয়ার পথে মৃত্যু হয়। ফিরোজ সিকদার পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া উপজেলার রাজপাশা গ্রামের মৃত আবদুর রশীদের ছেলে।