পঞ্চগড় প্রতিনিধি:

পঞ্চগড় জেলা সদরের নিমনগড় এলাকায় করতোয়া নদীতে ড্রেজার দিয়ে পুনঃখননের সময় একটি কামানের গোলা পাওয়া গেছে। পাক ভারত যুদ্ধ কিংবা মুক্তিযুদ্ধের সময় এই গোলা ব্যবহৃত হয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করছেন স্থানীয়রা। গোলাটি থেকে ধোঁয়া উদগীরণ হচ্ছে। এতে ওই স্থানীয়দের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় পঞ্চগড় পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাল নিশান দিয়ে ঘিরে রাখে গোলার চারপাশ। এ সময় তারা স্থানীয়দের নিরাপদ দূরত্বে থাকার অনুরোধ করেছেন। একই সাথে রংপুর সেনাবাহিনীর বোম ডিসপোজাল ইউনিটকে খবর দেয়া হয়েছে বলেছে জানায় পুলিশ। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত ১৮ মার্চ নিমনগড় এলাকায় ড্রেজার মেশিন দিয়ে করতোয়া নদী খননের সময় উঠে আসে ওই কামানের গোলা। এ সময় ওই এলাকার মো. খোকন লোহা সদৃশ্য বস্তু মনে করে বাড়িতে নিয়ে যান গোলাটি। তার বাড়িতেই সংগৃহিত ছিলো সেটি। শনিবার বিকেলে পানি দিয়ে ধুয়ে পরিষ্কার করার সময় আঘাত পেয়ে ওই গোলা থেকে ধোঁয়া উদগীরণ হতে থাকে।

এ সময় ওই ব্যক্তি দ্রুত গোলাটি বাড়ির পাশের ফাঁকা স্থানে রেখে আসে। গোলাটি থেকে এখনো ধোয়া বের হচ্ছে। প্রায় ৮ থেকে ১০ ইঞ্চির গোলাটির গায়ে লেখা রয়েছে খঅণ-২-১-৪৫। পঞ্চগড় সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জুয়েল রানা বলেন, ধোঁয়া উঠতে থাকায় গোলা সদৃশ বস্তুটি স্থানীয় এক ব্যক্তি নদীর সড়কের পাশের ফাঁকা স্থানে রেখে আসে। এখনো সেখান থেকে ধোয়া উঠছে। আমরা স্থানটির চারপাশে লাল কাপড় টানিয়ে দিয়েছি যেন মানুষ কাছে না যায়। এছাড়া রংপুর বোম ডিসপোজাল ইউনিটকে খবর দেয়া হয়েছে। তারা এসে বস্তুটি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানাতে পারবে।